নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলায় ছোট্ট একটি দ্বীপের নাম নিঝুম দ্বীপ। বঙ্গোপসাগরের কোলে উত্তর ও…

সিংহল দ্বীপএর গপ্পো ( পর্ব #২) # Sri Lanka হাতীদের এতিমখানা ,চিড়িয়া খানা দর্শন…
December 21, 2018
নংরিয়াত এবং একটি রেইনবো ফল (চেরাপুঞ্জি, মেঘালয়) অনেক জল্পনা কল্পনা শেষে দুই বন্ধু মিলেই…
নংরিয়াত এবং একটি রেইনবো ফল (চেরাপুঞ্জি, মেঘালয়) অনেক জল্পনা কল্পনা শেষে দুই বন্ধু মিলেই…
December 21, 2018
নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলায় ছোট্ট একটি দ্বীপের নাম নিঝুম দ্বীপ। বঙ্গোপসাগরের কোলে উত্তর ও…

নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলায় ছোট্ট একটি দ্বীপের নাম নিঝুম দ্বীপ। বঙ্গোপসাগরের কোলে উত্তর ও পশ্চিমে মেঘনার শাখা নদী আর দক্ষিণ এবং পূর্বে সৈকত সমুদ্র বালুচর বিশিষ্ট ছোট্ট একটি দ্বীপ।
সবুজের সমাহার ও হরিণের অভয়ারণ্য জন্য 2001 সালে বাংলাদেশ সরকার পুরো দ্বীপটিকে জাতীয় উদ্যান হিসেবে ঘোষণা করেন।

ক্যাম্পিং করার জন্য নিঝুম দীপ উত্তম একটি জায়গা। বর্তমানে নিঝুম দ্বীপে ভ্রমণপিপাসুরা ক্যাম্পিং করে রাত যাপন করছেন। নিঝুম দ্বীপে শীতের সকালে বসে হাজারো পাখির মেলা বাগান থেকে বেরিয়ে আসে হরিণের দল যা আপনার ভ্রমণকে আরও আনন্দময় করে তুলবে। এছাড়াও দ্বীপে রয়েছে বানর,বন্য শুকর ও নানা জাতের সাপ।

নিঝুম দ্বীপের দর্শনীয় স্থানসমূহ-
পুরো নিঝুমদ্বীপ গুলো দেখার জন্য রয়েছে মোটরবাইক এছাড়াও নৌকা নিয়ে নিঝুম দ্বীপের আশেপাশে ছোট ছোট চরগুলো ঘুরে দেখতে পারেন। এছাড়াও শীতের মৌসুমে পাবেন খেজুরের রস ও মহিষের দধি আর সাগরের তাজা মাছ তো আছেই।

নিঝুম দ্বীপ বনায়ন প্রকল্প। নিঝুম দ্বীপ এ ছোট ছোট ছেলেরা গাইড এর কাজ করে, এদের সাথে নিয়ে সকাল বেলায় বনের ভেতর ঢুকে পড়ুন। হরিন দেখতে পাবেন।

নামার বাজার থেকে হেঁটে যেতে ১০ মিনিট লাগে। এখান থেকে সূর্য উদয় ও সূর্যাস্ত দেখতে পাবেন, এখানে বারবিকিউ করে মজা পাবেন।

চোয়াখালিতে গেলে খুব সকালে হরিন দেখা যায়। মটর সাইকেল ওয়ালাকে বলে রাখুন খুব সকালে আপনাকে হোটেল থেকে নিয়ে হরিন দেখিয়ে আনবে।

এখনকার আবহাওয়া অনুযায়ী নিঝুম দ্বীপ ভ্রমনের জন্য বেস্ট। অন্য সময় বর্ষা থাকে ও ঝড়ের কারনে মেঘনা নদী ও সাগর উত্তাল থাকে।

যেভাবে যাবেন-
নৌপথ:ঢাকা থেকে নিঝুম দ্বীপ যাওয়ার সহজ রুটটি হলো- সদরঘাট থেকে লঞ্চে হাতিয়ার তমরুদি।ঢাকা থেকে ছাড়ে বিকেল সাড়ে ৫ টায় আর তমরুদি থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছাড়ে দুপুর সাড়ে বরোটায়। তমরুদ্দি ঘাট থেকে গাড়িতে করে যেতে হবে মুক্তারিয়া ঘাট, সেখান থেকে ট্রলারে করে যেতে হবে নিঝুমদ্বীপ-এর বন্দরটিলা ঘাট। ঘাটে অনেক মোটর বাইক পাওয়া যায় বাইকে করে চলে যাবেন নামার বাজার সেখানে মূলত নিঝুম দ্বীপের সকল রিসোর্ট ও বাগান রয়েছে।

সড়ক পথ: ঢাকা অথবা চট্টগ্রাম থেকে যে কোন গাড়ি করে আসতে হবে নোয়াখালীর চেয়ারম্যান ঘাট সেখান থেকে ট্রলারে অথবা স্পীডবোটে করে আসতে হবে হাতিয়া উপজেলার নলচিরা ঘাটে। নলচিড়া থেকে লোকাল গাড়িতে করে যেতে হবে মুক্তারিয়া ঘাটে। মুক্তারিয়া ঘাট থেকে নদী পার হয়ে বন্দরটিলা ঘাট যেতে হবে এরপর সেখান থেকে নামার বাজার।

বলে রাখা ভালো-নিঝুম দ্বীপ যেহেতু একটি দ্বীপ তো সেখানে যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে টলার যদি একবার টলার মিস হয়ে যায় তবে নিঝুম দ্বীপ যেতে ভোগান্তির কোন শেষ নেই। আর সেখানে টলার মূলত জোয়ার-ভাটার উপর নির্ভর করে যাতায়াত করে। নিঝুম দ্বীপ ও হাতিয়াতে যা কিছু করেন প্রথমে দাম অথবা দরদাম করে নিবেন, তা না হলে পরে ঝামেলায় পড়বেন।

যেখানে থাকবেন-
নিঝুম দ্বীপে থাকার জন্য বেশ কয়েকটি রিসোর্ট রয়েছে এছাড়াও বর্তমানে অনেকগুলো হোটেল রয়েছে। 1000 থেকে বারোশো এর ভিতরে মোটামুটি ভালো মানের হোটেল পেয়ে যাবেন। বর্তমানে সেখানে হোটেলের পাশাপাশি ক্যাম্পিংয়ের ব্যবস্থা রয়েছে স্থানীয় একজন লোক অনেকগুলো তাবু বসিয়ে থাকার ব্যবস্থা করেছেন। এক তাবুতে দুজন এক রাত 500 টাকা।
আপনারা চাইলেই নিজেরাও তাবু নিয়ে সেখানে রাত কাটাতে পারেন।

সর্বশেষ ঘুরতে গিয়ে কোথাও ময়লা আবর্জনা ফেলে পরিবেশ নষ্ট করবেন না।নিঝুম দ্বীপ যেহেতু হরিণের জন্য খ্যাত তাই এমন কোন কাজ করবেন না যাতে হরিণের ক্ষতি হয় রাতে বাগানে উচ্চস্বরে চিল্লাচিল্লি ও গান বাজাবেন না।

আরো কিছু জানার থাকলে যেকোন সময় ইনবক্স এ নক করতে পারেন। ধন্যবাদ 😊
হ্যাপি ট্রাভেলিং ❤️❤️